ইসলামি ব্যাংক স্টুডেন্ট অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়ম!

দৈনন্দিন জীবনে আমরা লেনদেনের সাথে সবাই সম্পৃক্ত রয়েছে আমাদের নানা রকম সময়ের নানা ধরনের লেনদেন করতে হয় বর্তমানে সবকিছু ডিজিটাল হওয়ায় আমরা লেনদেনের সুবিধা গুলো খুব সহজে পাচ্ছি আর বর্তমান ব্যাংক সুবিধা আমাদের খুব সহজেই এই লেনদেনের সাথে সম্পৃক্ততা রেখেছে এবং আপনারা চাইলে খুব সহজেই ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেন করতে পারবেন মধ্যযুগ থেকে ব্যাংক এর মাধ্যমে লেনদেন হয়ে আসছে তো সবাই আমরা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে চাই তার সেই অ্যাকাউন্ট এর মাধ্যমে টাকা জমা থেকে উত্তোলন সবকিছু করতে চাই বর্তমান সময়ে ব্যাংকের মাধ্যমে প্রায় অনেকগুলো কাজ খুব সহজে সমাধান করা যায়।

ধরুন আপনি একটি এলাকায় আছেন এবং আপনার টাকার প্রয়োজন আপনি সেখান থেকে চাইলে আপনার ব্যাংকের ভিসা কার্ড দিয়ে এটিএম বুথের সাহায্যে টাকা উত্তোলন করতে পারবেন তো বর্তমান সময়ে ব্যাংক ব্যবস্থা খুবই উন্নত এবং আপনারা চাইলে যেকোনো সময় যেকোনো ব্যাঙ্ক থেকে আপনার অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন এবং সেখানে লেনদেন করতে পারবেন বাংলাদেশের অনেক ধরনের ব্যাংক রয়েছে যেগুলোতে আপনারা খুব সহজেই লেনদেন করতে পারবেন আজকে আমরা আলোচনা করব যে বিষয়টি নিয়ে সেটি হল ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট খোলার যেসকল কার্যাবলী রয়েছে সেই বিষয়গুলো নিয়ে।

ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট কত প্রকার

একটি ব্যাংক একাউন্টে অনেক ধরনের অ্যাকাউন্ট তৈরি করা যায় আপনারা চাইলে এখানে নানারকম একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন তার প্রত্যেকটি ব্যাংক একাউন্টের নিজস্ব কিছু একাউন্ট রয়েছে যেগুলোতে অন্যান্য সুবিধা রয়েছে নিচে কয়েকটি ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট এর প্রকারভেদ দেখানো হলোঃ

  • কারেন্ট একাউন্ট
  • সেভিংস একাউন্ট
  • ডিপোজিট পেনশন স্কিম
  • ফিক্সড ডিপোজিট রিসিপ্ট

এখানে আপনারা দেখতে পাচ্ছেন ইসলামী ব্যাংক একাউন্ট মূলত চার প্রকার রয়েছে তো আপনারা চাইলে যেকোন প্রকারে আপনার একাউন্ট করে নিতে পারেন তা আজকে আমরা আলোচনা করব এই চারটি একাউন্ট এর মাঝে সেভিংস একাউন্টের স্টুডেন্ট একাউন্ট নিয়ে প্রত্যেকটি স্টুডেন্টদের একটা করে স্টুডেন্ট একাউন্ট তার প্রয়োজনের সময় দরকার হয় আপনারা স্টুডেন্ট একাউন্ট এর মাধ্যমে আপনার অর্থ এই ব্যাংকে জমা দিতে পারবেন এবং জমা করতেও পারবেন তো অনেক সময় দেখা যায় আমাদের স্টুডেন্ট একাউন্ট স্কুলের নানারকম কার্যাবলিতে দরকার হয় তা আজকে আমরা আলোচনা করব ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট সম্পর্কে একটি একাউন্ট খোলা থেকে শুরু করে কোন কোন কাজেই একাউন্ট ব্যবহার করতে পারবেন এবং এই অ্যাকাউন্ট থেকে কি ভিসা কার্ড পাবেন সেটি নিয়ে আলোচনা করব।

ইসলামি ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট কি

আমরা উপরে ইসলামী ব্যাংক একাউন্টের কয়েকটি প্রকারভেদ দেখেছি সেখানে প্রায় চারটি প্রকারভেদ রয়েছে তার মধ্যে একটি প্রকারভেদ সেভিংস একাউন্ট আর সেভিংস একাউন্ট এর মাঝে স্টুডেন্ট একাউন্ট পড়ে অর্থাৎ আপনি যদি বাংলাদেশের নাগরিক এবং বাংলাদেশের স্কুলে পড়া কোন স্টুডেন্ট হয়ে থাকেন তাহলে আপনারা ইসলামী ব্যাংক একাউন্টে স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে পারবেন অর্থাৎ আপনার অ্যাকাউন্টটি স্টুডেন্ট একাউন্ট নামে পরিচালিত হবে।

ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট প্রত্যেকটি স্টুডেন্ট তার নিজস্ব একাউন্ট খুলতে পারবেন আর আপনি যদি চান আপনার অ্যাকাউন্ট খুলতে তাহলে আপনারা খুব সহজেই ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে পারবেন আর বর্তমানে প্রত্যেকটি স্টুডেন্ট তার নানা রকম ফিউচার প্লান এর জন্য স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলে থাকে এবং সেখানে তারা তাদের টাকা আমানত রাখে।

ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট এর সুবিধা

অনেকের মনে হয়তো প্রশ্ন আসতে পারে আমি কেন একটি ইসলামিক ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলবো উপরে বলে দিয়েছি যে একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট আমাদের প্রায় প্রত্যেকের জন্য খুবই জরুরী ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে আমরা অনেক ধরনের কাজ খুব সহজে করতে পারি এবং যেগুলো আমাদের প্রতিনিয়ত কাজের তালিকায় পরে প্রত্যেকটি ব্যাংক একাউন্টের আলাদা আলাদা কিছু সুবিধা রয়েছে যার মাধ্যমে আপনারা সেই একাউন্টে আপনাদের টাকা জমা রাখতে পারবেন এবং আপনি চাইবেন সেই ব্যাংকেই সে ধরনের অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে।

ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট এ আপনারা যদি চান অনেকগুলো সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন তার মধ্যে কিছু সুবিধা আমি নিচে তুলে ধরলাম আপনারা চাইলে এই সুবিধাগুলো ইসলামিক ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট থেকে পেতে পারেনঃ

  • খুব সহজেই একাউন্ট তৈরি করার নিশ্চয়তা পাবেন আপনারা ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট অন্যান্য একাউন্টে যে সব ঝামেলা পোহাতে হবে সেটি কিন্তু আপনাকে ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট এ পোহাতে হবে না আপনারা খুব সহজে চাইলে আপনারা স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরী করতে পারবেন।
  • ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি করলে আপনারা নিজেই সেই একাউন্টের পরিচালনা করতে পারবেন এক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে 18 বছর হতে হবে কেননা একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করতে গেলে অবশ্যই আপনাকে একজন বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে আর বাংলাদেশের নাগরিক হতে হলে আপনাকে 18 বছর হতে হবে।
  • কোনরকম সার্চ এখানে আপনাকে দিতে হবে না স্টুডেন্ট সেভিং একাউন্টে আপনারা কোন রকম চার্জ দিতে হবে না এটি সম্পূর্ণ ফ্রিতে আপনারা ব্যবহার করতে পারবেন।
  • ইসলামী ব্যাংক একাউন্টে অ্যাকাউন্ট খুললে আপনার সাথে সাথেই সেখান থেকে অ্যাকাউন্ট নাম্বার এবং চেক বই নিতে পারবেন।
  • আপনারা চাইলে ইনস্ট্যান্ট সেখান থেকে ভিসা কার্ডের পাবেন ভিসা কার্ড নিয়ে আমরা পরবর্তীতে একটি পয়েন্টে আপনাদের সাথে আলোচনা করছি তো আপাতত আপনারা এই সুবিধাগুলো জেনে রাখুন।

ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্ট এর জন্য ভিসা কার্ড কি দেয়

বর্তমানে ডিজিটাল যুগে আমরা সবাই চাই আমাদের ব্যাংক আমাদের জন্য একটি ভিসা কার্ড দেয় এবং আমরা সেই ভিসা কার্ড দিয়ে এটিএম বুথের মাধ্যমে যেকোনো স্থান থেকে খুব সহজে টাকা উত্তোলন করতে পারি বর্তমানে।

আপনারা জানেন না সারা বাংলাদেশে নানারকম এটিএম বুথ রয়েছে এবং আপনারা চাইলে এখান থেকে টাকা উত্তোলন করতে পারবেন খুব সহজে অনেকের মনে প্রশ্ন জেগেছে যে আমি যদি একটি ইসলামিক ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট তৈরি করুন তাহলে কি সেখান থেকে আমাকে ভিসা কার্ড দেওয়া হবে এ বিষয়ে আপনি লক্ষ্য রাখতে পারেন যে ইসলামী ব্যাংক স্টুডেন্ট একাউন্টে অ্যাকাউন্ট করলে আপনারা খুব সহজেই একটি ভিসা কার্ড পেয়ে যাবেন।

তবে অনেকেই ভাবতে পারেন এটি হতে ডুয়েল কারেনসি ভিসা কার্ড কিন্তু নয় এটি হলো এক্সপ্রেস ভিসা কার্ড অর্থাৎ দুয়াল কারেন্সি কার্ড পেতে গেলে আপনাকে অনেক সময় অপেক্ষা করতে হবে এক্সপ্রেস ভিসা কার্ড এ কিন্তু আপনাকে সে রকম অপেক্ষা করতে হবে না আপনার আইডির স্ক্রীন অ্যাকাউন্ট তৈরি করে খুব সহজেই ইনস্ট্যান্ট এক্সপ্রেস ভিসা কার্ড নিতে পারবেন এবং এই ভিসা কার্ডের কিছু সুবিধা রয়েছে চলুন সেগুলো দেখে নিন।

ইনস্ট্যান্ট আপনারা স্টুডেন্ট একাউন্ট এর সাথে এই ভিসা কার্ড টি পেয়ে যাবেন এর জন্য আপনাকে আলাদা করে আর অপেক্ষা করতে হবে না

এই স্টুডেন্ট একাউন্ট এর সাথে যে এক্সপ্রেস ভিসা কার্ড দিয়ে আপনাকে দেওয়া হবে সেটি দিয়ে আপনারা ইসলামী ব্যাংকের যে কোন এটিএম বুথ থেকে একদিনে সর্বোচ্চ 50 হাজার টাকা উত্তোলন করতে পারবেন

এই ভিসা কার্ড টি খুব সহজেই পেয়ে যাচ্ছেন বলে আপনাকে আর বেশি সময় অপেক্ষা করতে হবে না যদি আপনার এই ভিসা কার্ড টি প্রয়োজন হয় তাহলে আপনারা খুব সহজেই স্টুডেন্ট একাউন্ট এর সাথে পেয়ে যাচ্ছেন

কি কি কারণে ইসলামী স্টুডেন্ট একাউন্ট প্রয়োজন হয়

অনেক সময় আমরা নানা রকম সমস্যায় ব্যাংক একাউন্টির সাহায্য নিয়ে থাকি স্টুডেন্ট একাউন্ট আমাদের স্টুডেন্টদের জন্য খুবই একটি কার্যকরী একাউন্ট আপনারা চাইলে স্টুডেন্ট একাউন্ট এর মাধ্যমে আপনার স্কুলের নানারকম বৃত্তি যেমন উপবৃত্তি উপবৃত্তি ইত্যাদি আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে নিতে পারবেন তো অনেকেই বর্তমানে উপবৃত্তির জন্য আবেদন করছে এবং আপনারা যদি চান আপনাদের উপবৃত্তির টাকা এই ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে নিয়ে আসতে পারবেন।

Islami bank student account খুলতে যা যা লাগবে

ইসলামী ব্যাংকে স্টুডেন্ট একাউন্ট সম্পর্কে আমরা সবাই অনেকগুলো তথ্য জানলাম এখন আমরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য সম্পর্কে আপনাদের মাঝে ধারণাটি ব্যক্ত করব ইতিমধ্যে সবকিছু আমাদের জানা হয়ে গিয়েছে স্টুডেন্ট একাউন্ট সম্পর্কে তো এখন আমরা জানবো Islami bank student account খুলতে যা যা লাগবে।

আমরা একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে আমাদের কিছু বিষয় এবং জিনিসপত্র লাগে যেগুলো ডকুমেন্ট হিসেবে তাদের কাছে জমা রাখতে হয় তাহলে চলুন দেখে নেই কি কি ডকুমেন্ট লাগবে আপনার ইসলামী ব্যাংকের কারেন্ট একাউন্ট খোলার জন্য!

স্কুল থেকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র: স্কুল থেকে প্রয়োজনীয় কিছু কাগজপত্র আপনাকে নিতে হবে আপনি বাংলাদেশের একজন স্টুডেন্ট কিনা সেটা যাচাই করার জন্য আপনাকে স্কুল থেকে কিছু কাগজপত্র নিতে হবে এক্ষেত্রে আপনারাই স্কুল থেকে আপনাদের প্রশংসাপত্র এডমিট কার্ড রেজিস্ট্রেশন কার্ড এছাড়াও আপনারা প্রত্যয়নপত্র ব্যবহার করতে পারেন আপনাকে ইস্টুডেন্ট দাবি করানোর জন্য তা আপনারা এগুলো আপনাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে নিয়ে যাবেন আপনার স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার জন্য

জন্ম সনদ: এরপর আপনাকে জন্ম সনদের দরকার হবে অথবা আপনি যদি 18 বছরের উপরে হন তাহলে আপনার ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে একাউন্ট তৈরি করতে হবে আর আপনি যদি আসো বছর নিশান তাহলে আপনাকে জন্ম সনদ নিয়ে যেতে হবে আপনার স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার জন্য

আপনার মা বাবার পরিচয় পত্র: আপনি যদি 18 বছরের নিচে হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে একজন অভিভাবক নিয়ে যেতে হবে এবং আপনার মা-বাবা কে আপনি আপনার অভিভাবক হিসেবে নিয়ে যেতে পারেন যদি আপনার 18 বছরের নিচে বয়স হয়ে থাকে তাহলে আপনি আপনার মা বাবার পরিচয় পত্রের ফটোকপি দিয়ে যাবেন স্টুডেন্ট একাউন্ট খোলার জন্য আর আপনার বয়স যদি 18 বছরের বেশি হয় তাহলে আপনার ভোটার আইডি কার্ড খুলতে পারে এক্ষেত্রে শুধু আপনার একজন অভিভাবক এর ছবি হলেও সাথে ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি নিতে হবে

মা-বাবা এবং আপনার পাসপোর্ট সাইজের ছবি:  আপনি যদি স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে চান তাহলে আপনার এবং আপনার মা বাবার পাসপোর্ট সাইজের ফটো দরকার হবে তা আপনি আপনার মা-বাবার পাসপোর্ট সাইজের ফটোকপি নিয়ে যাবেন

নোটঃ এখানে আপনাকে একটি বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে আপনার বয়স যদি 18 বছর হয় তাহলে আপনি একাই আপনার স্টুডেন্ট একাউন্ট তৈরি করতে পারবেন উপরোক্ত যে ডকুমেন্ট গুলোর কথা বলা হয়েছে সেগুলো নিয়ে আর আপনার বয়স 18 বছরের নিচে হয়ে থাকে তাহলে আপনারা আপনার মা অথবা বাবাকে নিয়ে ব্যাংকে যেতে হবে এবং সেখানে আপনার বাবার একটি স্বাক্ষর দিতে হবে আরো অনেকেই টাকা পয়সার ব্যাপারে চিন্তা করে থাকে এখানে টাকা লাগে না একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে তবে আপনার ব্যাংক একাউন্টে আপনাকে সর্বনিম্ন 100 টাকা জমা রাখতে হবে এটি হলো আপনার সেভিংস একাউন্টে সেভ।

আজকে এ পর্যন্ত ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন পরবর্তীতে দেখাবেন নতুন কোন আর্টিকেল নিয়ে সে পর্যন্ত আমাদের এই ওয়েবসাইটটির সঙ্গেই থাকুন আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *